ইতিহাসবাংলাদেশরাজনীতি

১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলা একাডেমিতে তাজউদ্দীন আহমদের ভাষণ

১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলা একাডেমিতে আয়োজিত সভায় তাজউদ্দীন আহমদের ভাষণের সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ-
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রধামন্ত্রী ও বর্তমান অর্থমন্ত্রী জনাব তাজউদ্দীন আহমদ পূর্ন আস্থার সাথে ঘোষণা করেন যে, সমাজতন্ত্রের লক্ষে এ দেশকে গড়ে তোলার অন্তর্নিহিত শক্তি বাঙ্গালী জাতির রয়েছে । গত স্বাধীনতা আন্দোলন ই তার প্রমান।দেশকে কাঙ্ক্ষিত পথে গড়ে তোলার জন্যে সমগ্র জাতিকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।শুধু গরীব কৃষক –শ্রমিকই কষ্ট ও ত্যাগ স্বীকার করবে কিন্তু শিক্ষিত মধ্যবিত্ত শ্রেণী করবেনা-তা আর বেশী দিন চলবেনা।জনাব তাজউদ্দীন আহমদ আরো বলেন,১৬ ই ডিসেম্বের আজ আমাদের আত্ম সমালোচনার ও দিবস। যে জাতি আত্ম- সমালোচনা করেনা সে জাতি কখনই অগ্রগতির পথে সঠিকভাবে এগিয়ে যেতে পারেনা। নিজের ঘর থেকেই দূর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সরকারের মিথ্যা সাফাই গাওয়া নয়- -বুদ্ধিজীবী সম্প্রদায়কে আমাদেরকে ত্রুটি বিচ্যুতি ধরিয়ে দিয়ে দেশ গড়ার কাজে গঠনমূলক দয়িত্ব পালন করতে হবে।দেশের কোটি কোটি মানুষের পেটে ক্ষুধা রেখে গুটিকতক সুবিধাবাদী শ্রেণীর জন্য এই স্বাধীনতা আসেনি।এ দেশের জনগণের জন্য খেত-কাপড় –শিক্ষা-ও বাসস্থানের নিশ্চয়তা বিধানের জন্য শোষনহীন সমাজ গঠনের উদ্দেশ্যেই আমাদের পরিশ্রম করতে হবে।অন্যথায় জনগণের মনে বিক্ষোভের ঝর সৃষ্টি হবে।

অর্থমন্ত্রী দেশকে সমাজতন্ত্রের দিকে এগিয়ে নেয়ার জন্যে স্বনির্ভর অর্থনীতির গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে খেত -খামার ও কলে-কারখানার উৎপাদন বাড়ানোর আহবান জানান। আমরা বাঙ্গালী জাতী খুব বেশী তারাতারি সবকিছু ভুলে যাই। আমরা অল্প কয়দিনে শোকাবহ দিনগুলাকে ভুলতে শুরু করেছি। এই মুহূর্তে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের সার্বিক ইতিহাস রচনা করতে হবে।জদি সঠিক ইতিহাস রচিত না হয় তবে আগামীদিনে জাতি আমাদেরকে কিছুতেই ক্ষমা করবেনা।বাঙ্গালীর স্বাধীনতার ইতিহাস বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে জনগণই সৃষ্টি করেছে।একা কেউ এই ইতিহাস তৈরি করেনি। এ ইতিহাসকে সঠিক ভাবে রচনা করার জন্য বুদ্দিজীবী সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানান।

জনাব তাজউদ্দীন আহমদ শহীদদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, আত্মত্যাগের মাধ্যমে শহীদ ভাইয়েরা দেশের স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছেন।এখন দেশকে গড়ে তুলার দায়িত্ব আমাদের। আমরা যদি সেই দায়িত্ব পালনে ব্যার্থ হই, তবে ইতিহাসের আস্তাকুড়ে স্থান নিতে হবে।
জনাব তাজউদ্দীন আহমদ সুস্পষ্ট ভাষায় ঘোষনা করেন যে, বাংলাদেশের রাজনীতির বুনিয়াদে বিদেশী শাসনের অনুপ্রবেশের কোন সুযোগ ও সম্ভাবনা নাই। তিনি বলেন ,স্বনির্ভর অর্থনীতি কায়েম করতে না পারলে আমাদের উপর সম্রাজ্যবাদী চাপ থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। পরিশেষে স্বাধীনতার মূল্যবান তথ্য জনগণের সামনে উপস্থাপন করেন এবং ভাষণের সমাপ্তি টানেন এই বলে, জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু।

Tags
Show More

Related Articles

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close